কিডনীতে কি কি রোগ হতে পারে ? কিডনী রোগের উপসর্গ বা কিডনী রোগের লক্ষণ ?

পোস্ট সামারীঃ

  • কিডনীতে কি কি রোগ হতে পারে ? 
  • কিডনীতে কি কি ধরনের রোগ হতে পারে ? 
  • কিডনী রোগের উপসর্গ বা কিডনী রোগের লক্ষণ ?
  • শরীর বা মুখমন্ডল ফোলা ?
  • কোন ধরনের কিডনী রোগীর শরীর ফুলে যায় ?
  • প্রাথমিকভাবে কিডনী রোগে কোন লক্ষন বা উপসর্গ প্রকাশ পায় না ?
  • শিশুদের ক্ষেত্রে কিডনী রোগের লক্ষণ ?
  • প্রস্রাবের বর্ণের অস্বাভাবিকতা ?
  • কিডনীতে ব্যাথা ?

গুগল নিউজ হতে আপডেট ” নিউজ হতে আইবাস++ ও সরকারি নিউজের আপডেট সংগ্রহ করে নিতে পারেন।

কিডনীতে কি কি রোগ হতে পারে ? 

সচরাচর কিডনীর যে সমস্ত রোগ আমাদের নজরে পড়ে তা দু’ভাগে ভাগ করা যায়-

১. মেডিকেল সংক্রান্ত

২. শল্য সংক্রান্ত মেডিকেল সংক্রান্ত রোগ সাধারণত ঔষধে নিরাময় হয়, শল্য সংক্রান্ত রোগের জন্য অপারেশনের দরকার পড়ে ।

আরও জানুনঃ নবজাতক জন্মের পর করণীয় কি কি ? নবজাতকের নাভির যত্ন ? নবজাতকের গোসলের নিয়ম ?

কিডনীতে কি কি ধরনের রোগ হতে পারে ? 

  • কিডনীর ছাঁকনীরোগ বা নেফ্রাইটিস
  • প্রস্রাবের ইনফেকশন
  • উচ্চ রক্তচাপ ও কিডনী রোগ
  • ডায়াবেটিসজনিত কিডনী রোগ
  •  আকস্মিক কিডনী বিকল
  • ধীরগতিতে কিডনী বিকল
  • ওষুধের ব্যবহারজনিত কিডনী রোগ জন্মগত ও বংশাণুক্রমিক কিডনী রোগ
  • গর্ভকালীন কিডনী রোগ
  • শল্য সংক্রান্ত রোগ (ইউরোলজি)
  • পাথর জনিত কিডনী রোগ
  • জন্মগত কিডনী বিকলাঙ্গতা
  • প্রস্টেট গ্ল্যান্ডের জটিলতা

আরও জানুনঃ  গর্ভবতী মায়ের খাবার তালিকা এবং গর্ভবতী মায়ের খাবার ?

কিডনী রোগের উপসর্গ বা কিডনী রোগের লক্ষণ ?

মানুষের নানা রোগের বেশীর ভাগ ক্ষেত্রেই একাধিক উপসর্গ পরিলক্ষিত হয় । আবার অনেক রোগেরই সাধারণত: কোন নির্দিষ্ট উপসর্গ থাকে না। একটি রোগকে সঠিকভাবে নির্ণয় করতে কয়েকটি উপসর্গ মিলিয়ে দেখতে হয় । এরপরও রোগীকে পুংখানুপুংখরূপে পরীক্ষা করে এবং ল্যাবরেটরির আনুষাঙ্গিক পরীক্ষার ফলাফলের ভিক্তিতে রোগীর সঠিক রোগ নির্ণয় করা হয়ে থাকে । একজন দক্ষ চিকিৎসক রোগ সনাক্তকরণের উপর গুরুত্ব দিয়ে থাকেন আগে, কেননা রোগের চিকিৎসাই মূখ্য আর উপসর্গের চিকিৎসা গৌণ ।

এখানে কিডনী রোগের কি কি উপসর্গ হয়ে থাকে তার মোটামুটি বর্ণনা দেওয়া হল ।

আরও জানুনঃ গর্ভবতী মায়ের যত্ন কি কি এবং গর্ভবতী মায়ের প্রথম তিন মাসের সতর্কতা ? গর্ভবতী মায়ের কি কি চেকআপ করা দরকার ?

শরীর বা মুখমন্ডল ফোলা ?

মুখমন্ডল বলতে আমরা চোখের নীচের পাতাকে বোঝাচ্ছি । কিডনী রোগের কারণে শরীরে পানি জমে গেলে সাধারণত চোখের নীচে ফুলে যায়, যা সকালে ঘুম থেকে উঠার পর নজরে বেশী পড়ে । বেশী পরিমাণ মুখমন্ডল ফুলে গেলে সকালে চোখ খুলতেও অসুবিধা হতে পারে । যেহেতু চোখের নীচের পাতা ঢিলা এবং চামড়াও পাতলা সেহেতু পানি এখানে জমা হওয়ার সুযোগ পায় বেশী ও ক্রমান্বয়ে চোখের পাতা থেকে শুরু করে ফোলাটা ছড়িয়ে পরে পায়ে ও পরবর্তীতে পেটে ।

আরও জানুনঃ গর্ভাবস্থায় বা প্রেগনেন্ট হলে নারীর শরীরের পরিবর্তন বা লক্ষণ দেখা যায় ?

কোন ধরনের কিডনী রোগীর শরীর ফুলে যায় ?

  • সব ধরনের কিডনী রোগে শরীর ফুলে না, কেবলমাত্র ছাকনীতে প্রদাহ জনিত রোগ বা নেফ্রাইটিসে শরীর ফুলে যায় ।
  •  কিডনী ছাড়াও হৃদপিন্ড অকেজো হয়ে গেলে বা যকৃতের রোগে অনেক সময় শরীর ফুলে যায়।
  • হৃদপিন্ডের কারনজনিত ফোলা সাধারণত: প্রথমে পায়ে নজরে পড়ে এবং সঙ্গে রোগীর শ্বাসকষ্টও থাকে ।
  • আর যকৃত সংক্রান্ত হলে প্রথমে পানি আসে পেটে ও পায়ে, এক্ষেত্রে মুখমন্ডল কখনই ফুলে যায় না ।
  • এ ছাড়াও ফাইলেরিয়া রোগের কারণে, থাইরয়েড গ্লান্ডের জটিলতার কারণে, রক্তস্বল্পতার কারণে শরীর ফুলে যেতে পারে ।
  • প্রস্রাব পরীক্ষার পর প্রস্রাবে যদি বেশী পরিমাণে এ্যালবুমিন পাওয়া যায় তখন কিডনী রোগীকে আলাদা করা যায় ।

আরও জানুনঃ নরমাল ডেলিভারির কত দিন পর হতে স্বামী স্ত্রী  সহবাস করা যায় ? সিজারে বাচ্চা হওয়ার কত দিন পর হতে স্বামী স্ত্রী  সহবাস করা যায় ?

প্রাথমিকভাবে কিডনী রোগে কোন লক্ষন বা উপসর্গ প্রকাশ পায় না ?

কিডনীতে কি কি রোগ হতে পারে ? কিডনী রোগের উপসর্গ বা কিডনী রোগের লক্ষণ ?
কিডনীতে কি কি রোগ হতে পারে ? কিডনী রোগের উপসর্গ বা কিডনী রোগের লক্ষণ ?

প্রস্রাবের অস্বাভাবিকতা

সুস্থ মানুষ সাধারণত: দু’তিন ঘন্টায় একবার অথবা পানি খাবার প্রবণতা বেশী থাকলে ঘন্টায় একবার প্রস্রাব করতে পারে । মেয়েদের প্রস্রাব করার প্রবণতা ছেলেদের চেয়ে কম হয় এবং তারা সাধারণত পাঁচ ছয় ঘন্টা প্রস্রাব না করেও থাকতে পারে। হঠাৎ করে ঠান্ডা পরিবেশে, ছাত্র/ছাত্রীদের পরীক্ষার পূর্বে, অথবা যে কোন কারণে টেনশন বা নার্ভাস হলে প্রসাবের প্রবণতা এমনিতেই বেড়ে যায় ।

শিশুদের ক্ষেত্রে কিডনী রোগের লক্ষণ ?

  • শিশুরা সাধারণত জীবনের প্রাথমিক পর্যায়ে ঘন ঘন প্রস্রাব করলেও বয়স বাড়ার সাথে এই প্রবণতা লোপ পেয়ে স্বাভাবিক হয়ে আসে ।
  • পানি কম খেলে, শরীর অতিরিক্ত ঘেমে গেলে, প্রস্রাবের পরিমাণ কমে যেতে পারে ।
  •  প্রস্রাবে জীবাণুজনিত প্রদাহ হলে প্রস্রাব করার প্রবণতা কয়েকগুণ বেড়ে যায় অর্থাৎ ঘন্টায় পাঁচ-ছয় বার বা তারও বেশী হতে পারে ।

আরও জানুনঃ প্রিম্যাচিউর বেবি বলতে কি বুঝায় ? প্রিম্যাচিউর বাচ্চার যত্ন ? কত সপ্তাহে বাচ্চা ম্যাচিউর হয় ?

  • এমনকি প্রস্রাব করে আসার সঙ্গে সঙ্গে আবারও প্রস্রাবের বেগ হতে পারে ।
  • সঙ্গে প্রস্রাবে জ্বালা পোড়া এবং প্রস্রাবের রাস্তায় ব্যথাও হয়, অনেক সময় জ্বরও হতে পারে ।
  • বয়স্ক পুরুষের প্রস্টেট গ্ল্যান্ড বড় হয়ে গেলে রাতে প্রস্রাব করার প্রবণতা লক্ষ করা যায় ।
  •  এছাড়া প্রস্রাব করতে সময় বেশী লাগে এবং অনেক সময় ফোটা ফোটা প্রস্রাব করতে দেখা যায় ।
  • দুটো কিডনী অকেজো হয়ে গেলেও রাতে প্রস্রাবের বেগ হতে পারে ।
  • এছাড়াও ডায়াবেটিকস বা বহুমুত্র রোগেও ঘন ঘন প্রস্রাব হয়ে থাকে ।
  • ঘন ঘন পাতলা পায়খানা,
  •  অতিরিক্ত বমি,
  • আকস্মিক কিডনী বিকল,
  • একিউট নেফ্রাইটিস,
  • প্রস্রাবের রাস্তায় পাথর আটকা পড়লে
  • অথবা প্রস্টেট গ্ল্যান্ড বড় হওয়ার কারণে প্রস্রাব কমে যেতে যেতে এক পর্যায়ে বন্ধ হয়ে যেতে পারে ।
  • শিশুদের ক্ষেত্রে জন্মগত জটিলতা বা স্নায়ুতন্ত্রের বৈকল্যের জন্য প্রস্রাব বন্ধ হয়ে যেতে পারে ।

আরও জানুনঃ নরমাল ডেলিভারি হওয়ার লক্ষণ কি কি ? প্রসব ব্যথা বা ডেলিভারির ব্যথা কেমন হয় এবং শুরু হওয়ার লক্ষণ সমূহ ?

প্রস্রাবের বর্ণের অস্বাভাবিকতা

  • পানি কম পান করলে অথবা শরীর অতিরিক্ত ঘেমে গেলে প্রস্রাব ঘনীভূত হয়ে হলুদ বর্ণ ধারণ করতে পারে ।
  • এসব ক্ষেত্রে প্রস্রাব বের হওয়ার সময় কিছুটা জ্বালা-পোড়া হতে পারে ।
  • বি-কমপ্লেক্স জাতীয় ভিটামিন এবং জন্ডিস হলে প্রস্রাবের রং হলদে হয়ে যায় ।
  • আর লালচে বর্ণের প্রস্রাব হতে পারে রিফামপিসিন জাতীয় টিবির ওষুধ, অতিরিক্ত মাত্রায় লালশাক ও জাম খেলে ।
  •  রক্ত মিশ্রিত প্রস্রাব সেটা যে কারণেই হোক না কেন তা অবহেলা করা উচিৎ নয় ।
  •  এটা অতি সাধারণ কারণ থেকে শুরু করে ক্যানসারের মত মারাত্বক ব্যাধি পর্যন্ত হতে পারে ।
  • শৈশব ও কৈশোরে এর কারণ ব্যাপক, বয়স্কদের ক্ষেত্রে এর কারণ জটিল এবং বৃদ্ধদের ক্ষেত্রে এর কারণ বেশীর ভাগ ক্ষেত্রেই ভয়ংকর ।

আরও জানুনঃ গর্ভাবস্থায় টিকা দেওয়ার নিয়ম এবং গর্ভকালীন সময়ে কোন টিকা নিতে হয় ?

কিডনীতে ব্যাথা ?

পেটের ব্যাথার কারণ ব্যাপক । এটা যেমন কোন নির্দিষ্ট কারণ ছাড়াই হতে পারে ঠিক তেমনি বিভিন্ন জটিলতার কারণেও দেখা দিতে পারে ।

  • কিডনীর ব্যাথা সাধারণত নাভীর বরাবর পিছনের দিকে হয়ে থাকে ।
  • অনেক ক্ষেত্রে এই ব্যাথা ডান অথবা বাম দিকে হয়ে থাকে।
  • ব্যাথা সামনের দিকে এসে দুই কুচকি বরাবর যেতে পারে এবং
  • পুরুষদের অন্ডকোষ পর্যন্ত এবং
  • মেয়েদের জেনিটাল অর্গান পর্যন্ত বিস্তৃত হতে পারে ।
  • বেশীর ভাগ ক্ষেত্রেই কিডনীর ব্যাথা পাথরজনিত কারণে হয়ে থাকে ।
  • এসব ক্ষেত্রে ব্যাথা তীব্র থেকে তীব্রতর এবং সঙ্গে রক্ত মিশ্রিত প্রস্রাবও হতে পারে । তীব্র জাতীয় জীবাণু দ্বারা আক্রান্ত হলে ব্যাথার সঙ্গে জ্বরও থাকতে পারে ।

আরও জানুনঃ ওভুলেশন কি ? ওভুলেশন কিভাবে হয় ? ডিম্বাণু কত দিন জীবিত থাকে|গর্ভধারণের জন্য সবচাইতে উপযুক্ত সময় বোঝার উপায় ?

উপরোক্ত উপসর্গগুলো ছাড়াও কিডনী রোগের কারণে ক্রমাগত :

  • রক্ত-স্বল্পতা,
  • ক্ষুধামন্দা,
  • বমি বমি ভাব,
  • বমি হওয়া,
  • ক্রমান্বয়ে শারীরিক দূর্বলতা এবং
  •  চর্মজনিত কোন রোগ ছাড়া চুলকানি হতে পারে ।
  • সমষ্ঠিগত এই কারণগুলো কিডনী অকেজো রোগের প্রধান প্রধান উপসর্গ তবে তা শুধুমাত্র ল্যাবরেটরি পরীক্ষার মাধ্যমে চূড়ান্ত সিদ্ধান্তে উপনীত হওয়া যায় ।

দুটো কিডনী সম্পূর্ণভাবে অকেজো হয়ে যাওয়ার পরই ডায়ালাইসিসের মাধ্যমে রোগীকে বাঁচিয়ে রাখা হয় ।

আকষ্মিক কিডনী বিকল রোগে ডায়ালাইসিস অনেক রোগীকে সুস্থ-স্বাভাবিক

জীবন ফিরিয়ে দিতে পারে । একজন সুস্থ মানুষ তার নিকট আত্মীয়কে তার ১টি কিডনী দান করতে পারে।

এতে কিডনী দাতার কোন ক্ষতি হয় না ।

Reply

error: Content is protected !!