কোলেস্টেরল কমাতে ডিম ? রক্তে ক্ষতিকর কোলেস্টেরল প্রভাব কমায় ডিম ?

দেহের কোলেস্টেরল নিয়ে অধিকাংশই মানুষই চিন্তিত। কারণ কোলেস্টেরল এক ধরনের চর্বি যা শরীরের অনেক ক্ষতি  করে। কোলেস্টেরলের ক্ষতিকর প্রভাবের জন্য আমরা সবাই কম-বেশি ভয় পাই।

কোলেস্টেরল-কমাতে-ডিম
কোলেস্টেরল-কমাতে-ডিম

কি কি কারণে মানুষের শরীরে কোলেস্টেরল মাত্রা বেড়ে যায় ?

  • মানুষের খাদ্যাভ্যাসের কারণে শরীরে কোলেস্টেরল মাত্রা বেড় যায়।
  • অতিরিক্ত শুয়ে এবং বসে থাকার কারণে জীবনযাপনে কোলেস্টেরল বেড়ে যায় ।
  • ধূমপান
  • মদ্যপান
  • জর্দা সেবন এসব কারণেও বাড়ে।
  • অতিরিক্ত ওজন

গুগল নিউজ হতে আপডেট ” নিউজ হতে আইবাস++ ও সরকারি নিউজের আপডেট সংগ্রহ করে নিতে পারেন।

  •  বিভিন্ন রোগ বিদ্যমান কোলেস্টেরল এর জন্য দায়ী ( ডায়াবেটিস, উচ্চরক্তচাপ ) ইত্যাদি।

কোলেস্টেরল নিয়ন্ত্রণে রাখা অনেক জরুরি। রক্ত টেস্টের মাধ্যমে কোলেস্টেরল বেড়েছে কিনা তা জানা যাবে।

আরও জানুনঃ ইউরিক অ্যাসিড বেশী থাকলে আমে খাওয়ার অপকারিতা কি ? আম খেলে কি ইউরিক এসিড বেশি হয় ?

  শরীরে কোলেস্টেরল থাকলে ডিম খাওয়া কি উচিত? সপ্তাহে কটা ডিম খাওয়া যাবে ?

  • তত্ত্বানুসন্ধান রিপোর্ট জানলে অবাক হয়ে যাবেন। বেশির ভাগ ব্যক্তি মাঝ বয়সে পৌঁছে শঙ্কায় ডিম খাওয়া অফ করে দেন। কিন্তু ডিমে পাওয়া যায়ঃ
  • ভিটামিন এ;
  • ভিটামিন বি ১২;
  • একটা ডিমে ফ্যাট;
  • প্রোটিন;
  • ক্যালোরি;
  • পটাসিয়াম;
  • সোডিয়াম সব পাওয়া যায়! অথচ এতে কোলেস্টেরলও থাকে! যা টেনশনের বিষয় এ পরিস্থিতিতে ডিম খাওয়া যাবে কি না। অথচ রিসার্চ বলছে সুস্থ মানুষরা দিনে একটা করে ডিম খেতেই পারেন।
  • গবেষণায় চিকিৎসকের মতে, ডিম খেলে রক্তের কোলেস্টেরলের মাত্রা ততটা বৃদ্ধি পায় না। একজন পূর্ণ বয়স্ক সুস্থ লোক দৈনিক তৈরি করে ৩০০ মিলিগ্রাম পর্যন্ত কোলেস্টেরল গ্রহণ করতে পারে। 

আরও জানুনঃ মধুর উপকারিতা এবং খাঁটি মধু চেনার উপায় ? মধু খাওয়ার নিয়ম ও সময় ?

ডিমের কুসুমে কোলেস্টেরল আছে ?

  • প্রত্যেকটি ডিমের কুসুমে কোলেস্টেরল আছে : ১টি ডিমে আছে মাত্র ২০০ মিলিগ্রাম কোলেস্টেরল।

ডিমের কুসুম কি কোলেস্টেরলের জন্য ক্ষতিকর ?

  • কোলেস্টেরল কমাতে ডিম : ডিম রক্তে কোলেস্টেরল জমতে বাধা দেয়। ওজন কন্ট্রোলে রাখে, মস্তিষ্কের কার্যকারিতা ঠিক রাখে, বেশ ভালো রাখে চোখ, হাড় ও প্রোটিনের ঘাটতি পূরণে হেল্প করে।

  • ডিমের ধবল অংশ খেলে কোনো প্রবলেম তো হবেই না, এমনকি কুসুমসহ সম্পূর্ণ ডিম খেলেও শীর্ষ রক্তচাপ, কোলেস্টেরল ও হৃদ্রোগের ঝুঁকি থাকে না।
  • বিশেষজ্ঞদের মতে, প্রতিদিন ১টি করে ডিম খেলে হার্টের ক্ষতি করে না। সকালের নাশতায় ১টি ডিম কোলেস্টেরল প্রোফাইলের ওপর তেমন কোনো প্রভাব ফেলে না। ডিমের মধ্যে যে প্রোটিন, ভিটামিন বি১২, রিবোফ্লোবিন, Folate and vitamin D বিদ্যমান যা ক্ষতিকর কোলেস্টেরল বৃদ্ধির ক্ষতিকর ইফেক্ট  কমায়।

    শরীরের রোগ সম্পর্কে অনেকেই পরিচিত থাকেন না। সে ক্ষেত্রে সপ্তাহে তিনটা ডিম ভোজন করা নিরাপদ। মধ্যবয়স পেরিয়ে গেলেই এই নীতি মানতে জানানো হচ্ছে। কিন্তু এই বয়সে সব সময় প্রতি তিন মাসে শরীরের একটা রুটিন চেক-আপ করানো উচিত। এতে জানা যায় সুগার, কোলেস্টেরল বাড়ি বাঁধছে কি না। কোলেস্টেরল থাকে তাহলে বা বহু মাত্রায় থাকে তাহলে একটার অধিক ডিম সপ্তাহে খাওয়া সমীচীন নয়। ডিমের কুসুমের মধ্যেই বেশির ভাগ উপকরণ থাকে। এজন্য পুষ্প বাতিল দিয়েও খেতে পারেন।

আরও জানুনঃ খালি পেটে লেবু খাওয়ার উপকারিতা ? লেবু পাতার উপকারিতা ? ক্যান্সার প্রতিরোধে লেবু

ডিমের কোলেস্টেরলের প্রভাব ?

  • যদি হার্টের সমস্যা,হাই ব্লাড প্রেসারের প্রবলেম তার সাথে ব্লাড সুগার একত্রে থাকে তবে ডিম খাওয়ায় লাগাম টানতে হবে। এ ক্ষেত্রে মাসে দু’টো ডিম খেতে পারেন! তবে একটা বয়সের পর ডেইলি ডিম খাওয়ার আগে নিশ্চয়ই চিকিৎসকের পরামর্শ প্রয়োজন, যদি শরীরে রোগ থাকে।
  • নিয়মিত ফল, টাটকা শাক-সবজি অবশ্যই প্রতিদিনের খাদ্যতালিকায় রাখুন। তাহলে কোলেস্টেরল কন্ট্রোলে থাকে। বিভিন্ন রোগে আক্রান্ত হয়ে অযোগ্য হয়ে পড়েছেন যারা, সুস্বাস্থ্যের জন্য নিয়মিত ডিম আহার করা উচিত।

রিলেটেড ট্যাগঃ ডিমের কুসুম কি কোলেস্টেরলের জন্য ক্ষতিকর, ডিম কোলেস্টেরলের প্রভাব,ডিমের কুসুমে কোলেস্টেরল আছে,কোলেস্টেরল কমাতে ডিম

  •  

Reply

error: Content is protected !!