টাইম স্কেল কি ? টাইম স্কেল পাওয়ার নিয়ম ? ২০১৫ পে স্কেল এর পরও কি বহাল রয়েছে ? টাইম স্কেলে বেতন নির্ধারণ পদ্ধতি ?

টাইম স্কেল কি ?

টাইম স্কেল কি:

কোন পদে কর্মরত একজন কর্মচারি নির্ধারিত সময় যথা ৮,১২,১৫ বছর সন্তোষজনক চাকরি করার পর পরবর্তী যে উচ্চতর স্কেল প্রাপ্ত হন তাকে টাইম স্কেল বলে।

  • সন্তোষজনক চাকরির ভিত্তিতে টাইম স্কেল প্রদান করা হয়।
  • টাইম স্কেলে প্রাপ্য হলে বার্ষিক বেতন বৃদ্ধির তারিখ পরিবর্তন হয় না।

টাইম স্কেল কি ২০১৫ পে স্কেল এর পরও কি বহাল রয়েছে ?

টাইম-স্কেল-কি-২০১৫-পে-স্কেল-এর-পরও-কি-বহাল-রয়েছে-টাইম-স্কেলে-বেতন-নির্ধারণ-পদ্ধতি
টাইম-স্কেল-কি-২০১৫-পে-স্কেল-এর-পরও-কি-বহাল-রয়েছে-টাইম-স্কেলে-বেতন-নির্ধারণ-পদ্ধতি

জাতীয় বেতন স্কেল ২০১৫ জারির পর হতে টাইম স্কেল এর বিধান বাতিল করা হয়েছে।

জিপিএফ ব্যালেন্স চেক ২০২৩

গুগল নিউজ হতে আপডেট ” নিউজ হতে আইবাস++ ও সরকারি নিউজের আপডেট সংগ্রহ করে নিতে পারেন।

টাইম স্কেল এখনও কি মঞ্জুর করা হচ্ছে ?

  • জাতীয় বেতন স্কেল ২০১৫ জারির পর এখনো বকয়ে টাইম স্কেল মঞ্জুর করা হচ্ছে।
  • ১৫/১২/২০১৫ তারিখের পরে টাইম স্কেল মঞ্জুর করা যাবে না।

টাইম স্কেলে বেতন নির্ধারণ পদ্ধতি ?

  • টাইম স্কেলে বেতন নির্ধারণ করার জন্য প্রথমে আপনাকে ibas.finance.gov.bd ওয়েব সাইটে প্রবেশ করতে হবে।
  • এর পর অনলাইনে বেতন নির্ধারণের পূর্ব প্রস্তুতি ও বিশেষ সর্তকর্তা অুনসরণ করে পরবর্তীতে ধাপ এ প্রবেশ করতে হবে।
  • জরুরী নির্দেশনা জেনে নিয়ে আমি প্রিন্ট নিয়েছি, পড়েছি এবং বুঝেছি অপশনে ক্লিক করে পরবর্তী ধাপে প্রবেশ করতে হবে।
  • এরপর টাইম স্কেল অপশনটি ক্লিক করতে হবে।

টাইম স্কেলে বেতন নির্ধারণ পদ্ধতির ভিডিও দেখে নিতে পারেন।

আরও জানুনঃ অনলাইনে জিপিএফ ব্যালেন্স চেক করার উপায় ২০২৪ এবং জিপিএফ হিসাবের স্লিপ বের করার উপায় ?

পদোন্নতিপ্রাপ্ত পদে টাইম স্কেল পাওয়ার নিয়ম কি এবং টাইম স্কেল নীতিমালা ২০২৪ ?

পদোন্নতিপ্রাপ্ত-পদে-টাইম-স্কেল-পাওয়ার-নিয়ম-কি-এবং-টাইম-স্কেল-নীতিমালা-২০২৪
পদোন্নতিপ্রাপ্ত-পদে-টাইম-স্কেল-পাওয়ার-নিয়ম-কি-এবং-টাইম-স্কেল-নীতিমালা-২০২৪

মহাহিসাব নিরীক্ষক ও নিয়ন্ত্রকের কার্যালয় এর স্মারক নম্বর-সিএজি/প্রো-১/২৮৯/কে,ডব্লিউ-১/৪২১ ও তারিখঃ ১-১০-৯২ইং সিন্ধান্ত অনুযায়ী পদোন্নতিপ্রাপ্ত পদে টাইম স্কেল প্রদান করা হয়েছে।

পদোন্নতি প্রাপ্ত পদে টাইম স্কেল প্রদানের ক্ষেত্রে সংশ্লিষ্ট বিষয়ের উপর জটিলতা নিরসনকল্পে নিম্নবর্ণিত ব্যাখ্যা প্রদান করা হইল-

পদোন্নতি প্রাপ্ত পদে ১ম টাইম স্কেল পাওয়ার নিয়ম ?

(১) পদোন্নতিপ্রাপ্ত পদের স্কেলে পদোন্নতিপ্রাপ্ত কর্মচারী উচ্চতর বেতন স্কেল (টাইম স্কেল) পাইবেন কিনা? যদি প্রাপ্য হন তবে কয়টি পাইবেন?

ব্যাখ্যাঃ পদোন্নতির পূর্বের পদে কোন টাইম স্কেল না পাইয়া থাকিলে পদোন্নতি প্রাপ্ত পদে পদোন্নতির তারিখ হইতে ৮, ১২ ও ১৫ বৎসর পূর্তির ভিত্তিতে ৩টি টাইম স্কেল প্রাপ্য হইবে ।

(২) তিনটি টাইম স্কেল লাভের পর পদোন্নতিপ্রাপ্ত কর্মচারী উচ্চতর স্কেল টাইম স্কেল পাইবেন কিনা যদি প্রাপ্য হন তবে কয়টি পাইবেন?

ব্যাখ্যাঃ তিনটি টাইম স্কেল লাভের পর পদোন্নতিপ্রাপ্ত কর্মচারী নিম্নবর্ণিত প্রক্রিয়ানুযায়ী উচ্চতর বেতন স্কেল (টাইম স্কেল) প্রাপ্য হইবেন।

আরও জানুনঃ অক্ষমতাজনিত অবসর কি ? অক্ষমতাজনিত অবসর গ্রহণ করলে কি কি সুবিধা পাওয়া যায় ? অক্ষমতাজনিত অবসর গ্রহণ করলে পুনরায় চাকরি ফিরে পাওয়া যায় ?

ক) যদি পদোন্নতিপ্রাপ্ত পদের বেতন স্কেল তাহার নিম্নপদে প্রাপ্ত ১ম টাইম স্কেলের সমান হয়। এইরূপ ক্ষেত্রে ১৫ বৎসর পদোন্নতি প্রাপ্ত পদে চাকুরীর পর তিনি একটি টাইম স্কেল প্রাপ্ত হইবেন।

খ) যদি পদোন্নতিপ্রাপ্ত পদের স্কেল নিম্নপদে প্রাপ্ত দ্বিতীয় টাইম স্কেলের সমান হয়, এইরূপ ক্ষেত্রে ১২/১৫ বৎসর পদোন্নতিপ্রাপ্ত পদে চাকুরীর পর যথাক্রমে ১/২টি টাইম স্কেল প্রাপ্ত হইবেন।

গ) যদি পদোন্নতিপ্রাপ্ত পদের স্কেল নিম্নপদে প্রাপ্ত তৃতীয় টাইম স্কেলের সমান হয়, এইরূপ ক্ষেত্রে পদোন্নতিপ্রাপ্ত পদে ৮/১২/১৫ বৎসর চাকুরীর পর যথাক্রমে ১/২/৩টি টাইম স্কেল প্রাপ্ত হইবেন।

পদোন্নতি প্রাপ্ত পদে ২য় টাইম স্কেল পাওয়ার নিয়ম ?

পদোন্নতি-প্রাপ্ত-পদে-২য়-টাইম-স্কেল-পাওয়ার-নিয়ম-
পদোন্নতি-প্রাপ্ত-পদে-২য়-টাইম-স্কেল-পাওয়ার-নিয়ম

৩) (ক) দুইটি টাইম স্কেল প্রাপ্তির পর যদি কেহ পদোন্নতি লাভ করে ও প্রাপ্ত টাইম স্কেল ও পদোন্নতি পদের বেতন স্কেল একই হয় অথবা

খ) অর্থ মন্ত্রণালয়ের ১-১২-৮৪ইং তারিখের অফিস স্মারক নং- অম/অবি(বা)-৩-আর(জি)-১/৮৪ (অংশ-২)/১৫৫ এর অনুচ্ছেদ নং ‘ট’ এর নির্দেশ মোতাবেক কোন ব্যক্তিকে টাইম স্কেল প্রদানপূর্বক পদোন্নতিপদের বেতন স্কেলে বেতন দেওয়া হয় তবে সে পদোন্নতি পদের বেতন স্কেলের উপর টাইম স্কেল পাইবেন কিনা? যদি পান তবে কয়টি পাইবেন?

ব্যাখ্যাঃ (ক) দুইটি টাইম স্কেল প্রাপ্তির পর পদোন্নতি লাভ করিলে প্রাপ্ত টাইম স্কেল ও পদোন্নতিপ্রাপ্ত বেতন স্কেল এক হয় তাহা হইলে পদোন্নতির তারিখ হইতে ৮, ১২, ১৫ বৎসর চাকুরী পুর্তির পর ১/২/৩টি টাইম স্কেল প্রাপ্ত হইবেন।

আরও জানুনঃ প্রাপ্যতা বিহীন ছুটি ? প্রাপ্যতা বিহীন ছুটি সর্বোচ্চ কত দিনের মঞ্জুর করা যায় ?

পদোন্নতি প্রাপ্ত পদে ৩য় টাইম স্কেল পাওয়ার নিয়ম ?

খ) যে সমস্ত কর্মচারী পদোন্নতি উপেক্ষা করিয়া নিম্নতর পদে ৩টি টাইম স্কেলের সুবিধা নিয়েছেন, পুনরায় তাহারা পদোন্নতিপ্রাপ্ত পদে ৮, ১২ ও ১৫ বৎসর চাকুরীকাল পুর্তিতে ১টি/২টি/৩টি টাইম স্কেলের সুবিধা পাইবেন। এরূপ ক্ষেত্রে তাহাদের পদোন্নতিপ্রাপ্ত পদে যে সময়কাল নিম্নতর পদে গণনা করা হইয়াছে তাহা বাদ দিয়া পদোন্নতিপ্রাপ্ত পদের চাকুরীর সময়কাল গণনা করিতে হইবে ।

এম.টি.এইচ.এস ইকবাল

অতিঃ উপ-মহাহিসাব নিরীক্ষক ও নিয়ন্ত্রক (পদ্ধতি)

পদোন্নতি প্রাপ্ত পদে টাইম স্কেল সংক্রান্ত পরিপত্র ?

ডিভিশনাল কন্ট্রোলার অব একাউন্টস এর কার্যালয় রাজশাহী বিভাগ, রাজশাহী এর স্মারক নম্বর স্মারক নং-ডিসিএ/রাজ/পদ্ধতি/সিদ্ধান্ত/ডিএও বগুড়া/১৭২/খন্ড-২/০৪-০৫/৬৪৪ তারিখ: ২৯/১০/২০১৪ এর মাধ্যমে পদোন্নতি প্রাপ্ত পদে টাইমস্কেল প্রদান করা হয়েছে।

জনাব মোঃ ইকবাল হোসেন এলডিএ হিসেবে (১২০-২৭৫ টাকার স্কেলে) নিয়োগ প্রাপ্ত হয়ে অর্থ ও পরিকল্পনা মন্ত্রণালয়ে ০৯/০৪/১৯৭৩ খ্রিঃ তারিখে যোগদান করেন। মন্ত্রণালয়ে/সচিবালয়ে কর্মরত এলডিএ পদে সিলেকশন গ্রেড প্রাপ্তির বিধান থাকায় তিনি ০১/০৯/১৯৮১ তারিখে (জাতীয় বেতন স্কেল-১৯৭৭ এর ৩২৫-৬১০ স্কেল) সিলেকশন গ্রেড প্রাপ্ত হন। উক্ত পদে ও সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়ে কর্মরত থাকাকালীন তিনি উদ্বৃত্ত কর্মচারী ঘোষিত হয়ে, আইন ও বিচার মন্ত্রণালয়ে সমপদে আত্মীকরণের মাধ্যমে জেলা জজ টাঙ্গাইলে বদলী হন। জেলা জজ টাঙ্গাইলের ০২/১২/১৯৮৩ তারিখের আদেশে গোপালপুর উপজেলা মুন্সেফ কোর্টে সেরেস্তা সহকারী পদে (সমপদে, পদের মূল স্কেল, জাতীয় বেতন স্কেল ১৯৭৭ এর ৩০০-৫৪০ স্কেল) যোগদান করেন। মন্ত্রণালয়ে/সচিবালয়ে কর্মরত থাকাকালীন অর্থাৎ আত্মীকরণের পূর্বে প্রাপ্ত সিলেকশন গ্রেড ৩২৫-৬১০ টাকার স্কেলে তিনি বেতন ভাতা আহরণ করতে থাকেন। ৮, ১২, ১৫ বছর চাকুরী পূর্তিতে তাকে জাতীয় বেতন স্কেল-১৯৭৭ এর ৩৭০-৭৪৫, এবং জাতীয় বেতন স্কেল-১৯৮৫ এর ৮৫০-১৭০০, ৯০০-২০৭৫ টাকার বেতন স্কেলে যথাক্রমে ১ম, ২য়, ৩য় টাইম স্কেল প্রদান করা হয়। মাঠ পর্যায়ে (সচিবালয়ের বাইরে) নিম্নমান সহকারী সমপদ সেরেস্তা সহকারী পদে সিলেশন গ্রেড প্রাপ্যতার বিধান না থাকায় অর্থ বিভাগের ২১-০৫-৮৪ খ্রিঃ তারিখের প্রজ্ঞাপন নং MF/FD(imp)-III-R(G)-12 /83/78 এর ii অনুচ্ছেদের বিধান অনুযায়ী কোন কর্মচারীকে পদোন্নতি ব্যতিরেকে পদের মূল বেতন স্কেল অপেক্ষা ৩ (তিন) টির বেশি উচ্চতর স্কেল প্রদেয় নয়। সুতরাং তাকে সেরেস্তা সহকারী পদে ৯০০-২০৭৫ টাকা স্কেল প্রদান নিরীক্ষার দৃষ্টিতে সঠিক হয়নি।

আরও জানুনঃ পেনশন ইএফটি কি ? ইএএফটি রিটার্ন কী ?  ইএফটি রিটার্ন হলে করণীয় ? পেনশনার মারা গেলে করণীয় ?

৩। সেরেস্তাদার পদের মূল বেতন স্কেল, জাতীয় বেতন স্কেল-১৯৭৭ অনুযায়ী ৩২৫-৬১০ (গ্রেড- ১৫) টাকা। তিনি সেরেস্তাদার পদে ১৮-০৯-৮৯ তারিখে পদোন্নতি লাভ করেন। তার পদোন্নতি স্কেল পূর্ব পদে অনিয়মিতভাবে গৃহীত স্কেলের চেয়ে কম হওয়ায় পদোন্নতি পদে বেতন নির্ধারণের প্রয়োজন পড়ে না। স্বাভাবিক নিয়মে উক্ত পদধারীদের তিনটি টাইম স্কেল প্রদান করলে জাতীয় বেতন স্কেল ১৯৯৭ অনুযায়ী ১২তম গ্রেড (২৩৭৫-৫১৩০) এর উপরের কোন স্কেল প্রাপ্তির সুযোগ নেই। সুতরাং এ ক্ষেত্রে জনাব মোঃ ইকবাল হোসেন সেরেস্তাদার এর ১১তম গ্রেডে (২৫৫০-৫৫০৫) টাকার স্কেলটি টাইম স্কেল হিসেবে প্রদানের কোন বিধিগত সুযোগ নেই মর্মে নির্দেশক্রমে জানানো হলো। এ সংক্রান্ত অর্থ বিভাগের একটি সিদ্ধান্ত পত্র এতদসঙ্গে সংযুক্ত করা হলো।

মোঃ মফিজ উদ্দিন

নিরীক্ষা ও হিসাবরক্ষণ অফিসার

আরও জানুনঃ জিপিএফ এর নমিনি পরিবর্তন করার নিয়ম ২০২৪ ?

পিআরএল ভোগকালীন অবস্থায় সরকারি চাকরি টাইম স্কেল পাওয়ার নিয়ম বা টাইম স্কেল সংক্রান্ত পরিপত্র ?

বাংলাদেশের মহা হিসাব নিরীক্ষক ও নিয়ন্ত্রকের কার্যালয় স্মারক নম্বর সিএজি(প্রো-১)১৮৯/কে, ডব্লিউ-১/৫৪৫ এবং তারিখ ১৫-১২-৯২ অনুযায়ী অবসর প্রস্তুতিকালীন ছুটি ভোগকালে উচ্চতর স্কেলে (টাইম স্কেলে) বেতন নির্ধারণের সুবিধা প্রদানের সিন্ধান্ত প্রদান করার হয়েছে।

উপরোল্লিখিত বিষয়ে, অর্থাৎ ২১-১২-৮৩ইং তারিখে ও উক্ত তারিখের পর অবসর প্রস্তুতি ছুটিতে থাকাকালীন সময়ে কোন সরকারী কর্মকর্তা/কর্মচারীর উচ্চতর স্কেল/টাইম স্কেল প্রাপ্তির সময় হইলে তাহার পেনশন নির্ধারণেরক্ষেত্রে উচ্চতর স্কেলে বেতন নির্ধারণের সুবিধা প্রাপ্য কিনা এ ব্যাপারে সংশয় দেখা দেওয়ায় বিষয়টির উপর অর্থ বিভাগের সিদ্ধান্ত চাওয়া হইলে, অর্থ বিভাগের বাস্তবায়ন অনুবিভাগ শাখা-৩ হইতে ১-৮-৯৯ বাং/১৫-১১-৯২ইং তারিখের অম/অবি(বা)-৩-উঃস্কেঃ-১/৮৮(অংশ- ১)/১৩৪ নম্বর স্মারকে জানানো হয় যে, কর্মচারীদের উচ্চতর স্কেল বা টাইম স্কেল সংক্রান্ত কয়েকটি আদেশ ২১-১২-৮৩ইং তারিখ থেকে কার্যকর করা হয়। তার প্রক্ষিতে উক্ত তারিখের পূর্বে যারা এল, পি, আর, এ ছিলেন বা  মারাগেছেন তাঁহাদেরকে উক্ত টাইম স্কেলের সুবিধা দেয়া হয়নি। তবে যারা উক্ত তারিখে (২১-১২-৮৩ইং) এল, পি, আর-এ ছিলেন তাঁহাদেরকে শুধুমাত্র পেনশন নির্ধারণের ক্ষেত্রে টাইম স্কেলের সুবিধা দেয়া হয় (প্রাপ্যতা স্বাপেক্ষে) অনুরুপ সুবিধা যাহারা ২১-১২-৮৩ইং তারিখের পর এল,পি,আর-এ গেছেন/যাবেন তাঁহাদেরকেও প্রাপ্যতা সাপেক্ষে শুধু মাত্র পেনশন নির্ধারণের ক্ষেত্রে প্রদেয় হবে, কিন্তু এবাবদ কোন বকেয়া বেতন ভাতাদি প্রদেয় হবে না। সকলের অবগতি ও প্রয়োজনীয় কার্যক্রম গ্রহণের নিমিত্তে প্রেরণ করা হইল ।

স্বাক্ষরিত/-

(এম,টি,এইচ,এস, ইকবাল)

অতিঃ উপ-মহাহিসাব নিরীক্ষক ও নিয়ন্ত্রক (পদ্ধতি)


আরও জানুনঃ সাধারণ ভবিষ্য তহবিল বা জিপিএফ অগ্রিম উত্তোলনের নিয়ম ২০২৩ অথবা জিপিএফ লোন এর নিয়ম ?

পদোন্নতি না হওয়ার ভিত্তিতে নিম্ন পদে প্রাপ্ত টাইম স্কেল বাতিল করিয়া পদোন্নতি প্রাপ্ত পদে টাইম স্কেল প্রদান সংক্রান্ত পরিপত্র ?

সরকার হিসাব মহা নিয়ন্ত্রক এর কার্যালয় স্মারক নম্বর পদ্ধতি (উঃ নি)/৩২১/৯২৮ এবং তারিখঃ ১৪/৫/২০০০ইং

এর মাধ্যমে পদোন্নতি না হওয়ার ভিত্তিতে নিম্ন পদে প্রাপ্ত টাইম স্কেল বাতিল করিয়া পদোন্নতি প্রাপ্ত পদে টাইম স্কেল প্রদান করার সিন্ধান্ত প্রদান করা হয়েছে।

উপযুক্ত বিষয় ও সূত্রের প্রতি সদয় দৃষ্টি আকর্ষণ পূর্বক জানানো যাইতেছে যে, “যদি পদোন্নতি না হইত” এর ভিত্তিতে নিম্নতর পদে প্রাপ্ত টাইম স্কেল বাতিল করিয়া সমুদয় অর্থ সরকারী কোষাগারে জমা দিয়া পদোন্নতি প্রাপ্ত পদে ৮. ১২, ১৫ বৎসর পূর্তীতে টাইম স্কেলে সুবিধা প্রদান করা যায় কিনা এই বিষয়ে আর, এ, ও ময়মনসিংহ কর্তৃক এই কার্যালয়ের মতামত চাওয়া হইয়াছে।

আরও জানুন: জিপিএফ হিসাব দেখার নিয়ম বা জিপিএফ হিসাব ক্যালকুলেটর। সাধারণ ভবিষ্য তহবিল gpf এক ক্লিকেই তহবিলের হিসাব বের করা পদ্ধতি

২।এই কার্যালয়ের অভিমত হইল পদোন্নতি না হওয়ার ভিত্তিতে নিম্ন পদে প্রাপ্ত টাইম স্কেল পরবর্তী সময়ে বাতিল করা যাইবে না এমন কোন সরকারী আদশে জারী করা হয় নাই । কাজেই নিম্ন পদে প্রাপ্ত টাইম স্কেল বাতিল করিয়া সমুদয় অর্থ সরকারী কোষাগারে জমা দিয়া পদোন্নতি প্রাপ্ত পদে ৮, ১২, ১৫ বৎসর পূর্তীত টাইম স্কেলের সুবিধা প্রদান করা যায় বলিয়া এই কার্যালয় মত প্রকাশ করিতেছে।

৩। অতএব, বিষয়টির উপর সিএজি কার্যালয়ের সদয় মতামত প্রার্থনা করা হইল ।

81 সিজিএ মহোদয়ের অনুমোদনক্রমে লেখা হইল ।

(মোঃ আমির খসরু)

অতিরিক্ত হিসাব মহা নিয়ন্ত্রক

ফোনঃ ৯৩৩৮৫৫০


টাইম স্কেল ও সিলেকশন গ্রেড যুগপৎ ভাবে প্রাপ্তি সংক্রান্ত পরিপত্র ?

সরকার অর্থ বিভাগ, অর্থ মন্ত্রণালয় বাস্তবায়ন ও প্রবিধি অনুবিভাগ বাস্তবায়ন অধিশাখা-২ এর স্মারক নম্বর-অম/অবি (বাস্ত-২) আর্থিক সুবিধা (বিবিধ)-২/২০০২/৯১৪ এবং তারিখঃ ২২/১/২০০৮ খ্রিঃ এর মাধ্যমে টাইমস্কেল ও সিলেকশন গ্রেড যুগপৎ ভাবে প্রাপ্তি সংক্রান্ত সিন্ধান্ত প্রদান করা হয়েছে।

বিষয় ঃ মাদারীপুর জেলা জজ কার্যালয়ের জারীকারক জনাব কাজী আব্দুল মোতালেব এর টাইমস্কেল প্রদানের বিষয়ে মতামত প্রদান সংক্রান্ত ।

সুত্রঃ

হিসাব মহা নিয়ন্ত্রক কার্যালয়ের ৩/১/২০০৮ তারিখের পত্র নং-সিজিএ/পদ্ধতি-১/সিএ আইন ও বিচার/৫২৪/১৬৭।

উপর্যুক্ত বিষয়ে সূত্রোক্ত পত্রের প্রেক্ষিতে আদিষ্ট হয়ে জানানো যাচ্ছে যে, সরকারের অফিস/ প্রতিষ্ঠানে কর্মরত কর্মচারীদের একই পদে ৮,১২ ও ১৫ বছর চাকুরী পূর্তিতে ৩টি টাইমস্কেল প্রদানের বিধান রয়েছে। এছাড়া, জাতীয় বেতনস্কেল, ২০০৫ এর ৭ (১) অনুচেছদে উল্লেখিত অর্থ বিভাগের ১০/১১/১৯৯৭ তারিখের অম/অবি/বাস্ত-৩ টাইমস্কেল- ৩/৯৬ (অংশ)/৭২ (২০০০) নং স্মারক মোতাবেক টাইমস্কেল ও সিলেকশন গ্রেড যুগপৎ ভাবে প্রাপ্তির ক্ষেত্রে শুধুমাত্র যোগদান পদে সরকার কর্তৃক সিলেকশন গ্রেড প্রদানের প্রচলন রয়েছে, সে সকল পদে টাইমস্কেল ও সিলেকশন গ্রেড আগে ও পরে পাওয়ার কারণে সিলেকশন গ্রেডের স্কেলটি ব্যক্তিগত স্কেল হিসাবে চিহ্নিত করা হয়েছে এবং কোন পদধারী একই পদে সমগ্র চাকুরী জীবনে ৩টির অধিক টাইমস্কেল প্রাপ্য হবেন না মর্মে উল্লেখ

রয়েছে।

আরও জানুনঃ শ্রান্তি বিনোদন ছুটি কি ? কখন শ্রান্তি বিনোদন ছুটির জন্য কোন সময় আবেদন করবেন ও কোন কোন কর্মকর্তা/কর্মচারি rest and recreation leave প্রাপ্য হবেন না ?

২। জনাব কাজী আব্দুল মোতালেব এর জারীকারক পদে সিলেকশন গ্রেড প্রদানের প্রচলন নাই। সে অনুযায়ী দেখা যায় যে, তাঁর জারীকারক পদের স্কেল টাঃ ২৪০-৩৪৫(১৯ নং স্কেল) (২৫০০-৪৫৯০/-) এ ৮,১২,১৫ বছর পূর্তিতে পরবর্তী তিন ধাপ উচ্চতর স্কেল যথাক্রমে ১ম টাঃ ২৬০০-৪৮৭০/- দ্বিতীয় টাঃ ২৮৫০-৫৪১০/- এবং তৃতীয় টাঃ ৩০০০- ৫৯২০/- প্রাপ্য হন। জারীকারক পদে সরকার কর্তৃক সিলেকশন গ্রেড প্রদানের প্রচলন না থাকায় নিম্ন পদে প্রাপ্ত সিলেকশন গ্রেড স্কেল জারীকারক পদে সংরক্ষণ পূর্বক টাঃ ৩১০০- ৬৩৮০/- প্রদানের কোন সুযোগ নেই ।

স্বাক্ষরিত/

– (বিমান বিহারী বড়ুয়া)

উপ-সচিব ।

টাইম স্কেল কাকে বলে?

সরকারি কর্মকর্তা/কর্মচারি কোন পদে কর্মরত থাকলে নির্ধারিত সময় যথা আট বছর, বার বছর, পনর বছর সন্তোষজনক চাকরি করার পর পরবর্তী যে উচ্চতর স্কেল পেয়ে থাকেন তাকে টাইম স্কেল বলে।

টাইম স্কেল কি এক শব্দ নাকি দুই শব্দ

টাইম স্কেল এক শব্দ।

রিলেটেড ট্যাগঃ টাইম স্কেল কি?, টাইম স্কেল নীতিমালা ২০২৩,টাইম স্কেল আবেদন, টাইম স্কেল পাওয়ার নিয়ম,

One Response

Reply

error: Content is protected !!